এসএসসি পাস করেই ‘অ্যাডিশনাল এসপি’ জিল্লুর রহমান

321

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) সা’ই’বার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রা’ই’ম বিভাগ অ্যাডিশনাল এসপি পরিচয়ে প্রতারণার মাধ্যমে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অ’ভিযো’গে জিল্লুর রহমান জেলিন নামের একজনকে গ্রেফ’তা’র করেছে।

মঙ্গলবার (১২ অক্টোবর) মোহাম্মদপুর থানা এলাকায় অ’ভিযা’ন চালিয়ে তাকে গ্রে’ফতা’র করা হয়। জানা গেছে, এসএসসি পাস জিল্লুর নিজেকে পরিচয় দেন অ্যাডিশনাল এসপি হিসেবে। আর এ পরিচয়েই পুলিশে চাকরি দেয়াসহ নানা কৌশলে মানুষের কাছ থেকে হাতিয়ে নিয়েছেন লাখ লাখ টাকা।

জিল্লুরের কাছ থেকে বাংলাদেশ পুলিশের র‌্যাংক ব্যাজ, বাংলাদেশ পুলিশের লোগো ও পুলিশ মনোগ্রাম সম্বলিত নেভি ব্লু রংয়ের একটি পুলিশের হাফ হাতা শার্ট, নেভি ব্লু রংয়ের পুলিশের একটি ফুল প্যান্ট, বাংলাদেশ পুলিশের মনোগ্রাম সম্বলিত চামড়ার বেল্ট,

কালো রংয়ের টিউনিক ক্যাপ একটি, জিল্লুর নামের একটি নেইম প্লেট, একটি পুলিশ সার্ভিস টাই, বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমী সারদার প্রশিক্ষণ সিডিউল দুই পাতা ও দুটি মোবাইল উদ্ধার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার বিকেলে ডিএমপির যুগ্ম পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বলেন, ‘জিল্লুর অ্যাডিশনাল এসপি পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন কৌশলে প্র’তার’ণার মাধ্যমে শহীদুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তির কাছ থেকে ১০ লাখ ৬৫ হাজার টাকা হাতিয়ে নেন।

তারই অ’ভিযো’গের পরিপ্রেক্ষিতে ১১ অক্টোবর মোহাম্মদপুর থানায় একটি মা’ম’লা হয়। মা’ম’লাটি ত’দ’ন্ত শুরু করে সা’ইবা’র অ্যান্ড স্পেশাল ক্রা’ই’ম বিভাগের ওয়েব বেইজড ক্রা’ই’ম ইনভেস্টিগেশন টিম। পরে মোহাম্মদপুর থেকে জিল্লুরকে গ্রে’প্তা’র করা হয়।’

তিনি বলেন, ‘গ্রে’প্তা’র জিল্লুর ১৯৯৯ সালে সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ থানার রায়গঞ্জ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাস করেন। তিনি টাকা হাতিয়ে নেয়ার জন্যে নিজেকে অ্যাডিশনাল এসপি হিসেবে পরিচয় দিতেন।

জিল্লুর নিজেকে অ্যাডিশনাল এসপি পরিচয় দিলেও তার কাছ থেকে উদ্ধার হওয়া র‌্যাংক ব্যাজ ছিল এসপি পদমর্যাদার কর্মকর্তার। তিনি পুলিশের কনস্টবলে চাকরি দেয়ার কথা বলে অনেকের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।’

জিল্লুর নিজেকে পুলিশ পরিচয়ে প্রতারণা করে পুলিশ বাহিনীর ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করেছেন বলে দাবি করেন যুগ্ম কমিশনার হারুন অর রশীদ।