কুরআনের আয়াত শুনিয়ে পুতিনের শান্তির আহবান !

287

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন মুসলমানদের ঐক্যের কথা স্মরণ করিয়ে পবিত্র কোরআনের আয়াত উদ্ধৃত করে মুসলমানদের ইয়েমেনে যুদ্ধ শেষ করার আহবান জানিয়েছেন।

গত সপ্তাহে তুরস্কের রাজধানী আঙ্কারায় তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান এবং ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানির সাথে আলোচনা শেষে পুতিন মুসলিম পবিত্র কুরআনের সূরা আল-ইমরানের একটি আয়াতের দলিল দিয়ে যু’দ্ধ শেষ করা আহবান জানায়।

তিনি সুরা আল ইমরানের ১০৩ নম্বর আয়াতের কিছু অংশ উদ্ধৃত করেন। যার অর্থ, ‘তোমাদের প্রতি আল্লাহর অনুগ্রহ স্মরণ করো, যখন তোমরা ছিলে পরস্পরের শ’ত্রু। অতঃপর তিনি তোমাদের অন্তরে সদ্ভাব সৃষ্টি করলেন, ফলে তাঁর অনুগ্রহে তোমরা পরস্পর ভাই হয়ে গেলে’।

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালে ইয়েমেনে আব্দরাব্বুহ মানসুর হাদির নেতৃত্বাধীন সরকারি বাহিনীর সঙ্গে হুথি বি’দ্রো’হী’দের মধ্যে লড়াই শুরু হয়। পরে সৌদি আরব নেতৃত্বাধীন জোট ইয়েমেন সরকারের পক্ষ নিয়ে যু’দ্ধে যোগ দিলে মানবিক পরিস্থিতি তৈরি হয়।

ভারতীয় সেনাপ্রধানের তীব্র সমালোচনা পাকিস্তানের…

পাকিস্তান মঙ্গলবার বিরোধপূর্ণ কাশ্মিরের পাকিস্তান অঞ্চল থেকে ‘অনুপ্রবেশ’ করার জন্য শত শত জ’ ঙ্গি অপেক্ষা করছে বলে ভারত সর্বশেষ যে অভিযোগ করেছে তাকে ‘সম্পূর্ণ’ ভিত্তিহীন হিসেবে অভিহিত করেছে।

ভারতীয় সেনাপ্রধান জেনারেল বিপিন রাওয়াত সোমবার অভিযোগ করেন যে চলতি বছরের প্রথম দিকে ভারতের বিমান বাহিনী সীমান্তের ওপারে পাকিস্তানের বালাকোটে যেসব স’ন্ত্রা’সী আস্তানা ধ্বং’ স করে দিয়েছিল, সেগুলো আবার চালু হয়েছে। জেনারেল বিপিন আরো বলেন, এসব ক্যাম্পে অন্তত ‘৫০০ লোক’ ভারতে অনুপ্রবেশের জন্য অপেক্ষা করছে।

ভারতীয় সামরিক প্রধানের এই মন্তব্যকে দায়িত্বহীন হিসেবে অভিহিত করে পাকিস্তান সরকার বলেছে, এ ধরনের বক্তব্য আঞ্চলিক শান্তির জন্য হু’ম’কি সৃষ্টিকারী। পাকিস্তান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়, কাশ্মিরের মানবিক বিপর্যয় থেকে বিশ্বের দৃষ্টি সরিয়ে নেয়ার বেপরোয়া চেষ্টা এটি।

পৃথক এক বিবৃতিতে পাকিস্তান সামরিক বাহিনী সতর্ক করে দিয়ে বলে যে এটা হয়তো আন্তঃসীমান্ত অভিযানের একটি অজুহাত হিসেবে ব্যবহৃত হতে পারে। পাকিস্তান সামরিক বাহিনী আরো জানায়, এমন কোনো কৌশল অবলম্বন করা হলে তার জন্য মা’রা’ত্ম’ক পরিণতি বরণ করতে হবে।

গত ৫ আগস্ট ভারত সরকার কাশ্মিরের বিশেষ মর্যাদা-সংবলিত সংবিধানের বিশেষ অনুচ্ছেদ বিলুপ্ত করার পর থেকে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে উত্তেজনা আরো বেড়েছে। ভারতের একমাত্র মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ রাজ্যটিতে এর পর থেকেই কারফিউ জারি করে রাখা হয়েছে, ইন্টারনেট ও মোবাইল ফোন সংযোগও বিচ্ছিন্ন করে দেয়া হয়।

কাশ্মির নিয়ে দুই দেশের মধ্যে বেশ কয়েকবার স’ঙ্ঘা’ত হয়েছে। ভারত-নিয়ন্ত্রিত কাশ্মিরের পুলওয়ামায় কথিত একটি স’ন্ত্রা’সী হামলার জের ধরে গত ২৬ ফেব্রুয়ারি ভারতীয় বিমান বাহিনীর বিমান সীমান্ত অতিক্রম করে বালাকোটে কথিত একটি স’ন্ত্রা’সী ক্যাম্পে বোমা ব’র্ষ’ণ করে।

পাকিস্তান এর কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই প্র’তি’শো’ধ’মূ’লক হামলা চালায়। তারা একটি ভারতীয় জ’ঙ্গি’বি’মান ভূপাতিত করে, এর পাইলটকে বন্দী করে। অবশ্য কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই ওই পাইলটকে মুক্তি দেয় পাকিস্তান।