গ্রেফতার এড়াতে পুলিশের সামনেই বিষপান করলেন মৌসুমি

74

গ্রে’ফ’তার এড়াতে পুলিশের সামনেই মৌসুমি আক্তার (২৮) নামে এক গৃহবধূর বি’ষ’পানের অভিযোগ পাওয়া গেছে। পুলিশের দাবি, সে এলাকায় চিহ্নিত মা’দ’ক কা’রবা’রি। সোমবার (২৩ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার

আখাউড়া উপজেলার নারাপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। গৃহবধূর পরিবারের দাবি, পুলিশ বিভিন্ন সময় মৌসুমিকে মা’দ’ক কা’রবা’রি বলে টাকা চায়। সন্ধ্যায় কয়েকজন পুলিশ মৌসুমির ঘরে গিয়ে তার নামে মা’দ’ক মামলা আছে

উল্লেখ করে থানায় যেতে বলে। এ নিয়ে মৌসুমির সঙ্গে পুলিশ সদস্যদের বা’গবি’ত’ণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে মৌসুমি ঘরে থাকা বি’ষ পান করে। গুরুতর আ’হ’ত অবস্থায় তাকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে নেয়া হয়। পরে অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায়

তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়। আখাউড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আসাদুল ইসলাম বলেন, মৌসুমি এলাকার একজন চিহ্নিত মা’দ’ক কা’রবা’রি। গ্রে’ফতা’রের চেষ্টা করা হলে ঘরে থাকা বি’ষ পান করে। তার ঘর থেকে ২০ কেজি গাঁ’জা জ’ব্দ করা হয়েছে।

বগুড়ায় অ্যাম্বুলেন্সের ধাক্কায় মারা গেছেন মাছ ব্যবসায়ী

বগুড়ার সদরের অ্যাম্বুলেন্সের ধা’ক্কায় হাসেন আলী (৪২) নামে এক মাছ ব্যবসায়ী নি’হ’ত হয়েছেন। এ সময় বাদশা মিয়া নামের আরেক মাছ ব্যবসায়ী আ’হ’ত হন। সোমবার (২৩ জানুয়ারি) সন্ধ্যা ৭টায় উপজেলার

মহাস্থানের নাগরকান্দী এলাকায় এই দু’র্ঘ’টনা ঘটে। হাসেন ও বাদশা দুজনেই মহাস্থানের নাগরকান্দী এলাকার বাসিন্দা। তারা একই সাথে মাছের ব্যবসা করতেন। দুর্ঘ’ট’নার বিষয়টি নিশ্চিত করেন গোবিন্দগঞ্জ হাইওয়ে থানার

এসআই এরশাদ আলী জানান, হাসেন ও বাদশা দু জনেই রাস্তার পাশে দিয়ে হেঁটে বাড়ি ফিরছিলেন। এ সময় রংপুর থেকে আসা একটি ফাঁকা অ্যাম্বুলেন্স দ্রুত গতিতে বগুড়ার দিকে যাচ্ছিল। অসাবধানতাবশত অ্যাম্বুলেন্সটি

দুই মাছ ব্যবসায়ীকে ধা’ক্কা দিলে ঘটনাস্থলেই হাসেন আলী মা’রা যান। বাদশা মিয়া গুরুতর আ’হ’ত হয়। তাকে আ’হ’ত অবস্থায় টিএমএসএস হাসপাতালে ভর্তি করায় স্থানীয়রা। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।