বমি বমি ভাব কিংবা গ্যাসের সমস্যা দূর করে আদা

688

আমাদের দেহের সুস্থতার জন্য বিশেষভাবে উপযোগী একটি উপাদান আদা। এছাড়াও কাঁচা আদায় রয়েছে দারুণ সব উপকারিতা।

খেতে একেবারেই ইচ্ছে হচ্ছে না? খাবার দেখলেই অসুস্থ বোধ করছেন? কোনো সমস্যা নয়। খাওয়ার আগে ১ চা চামচ আদা কুচি খেয়ে নিন। মুখের রুচি ফিরে আসবে।

প্রতিদিন মাত্র ১ ইঞ্চি পরিমাণের আদা কুচি খাওয়া অভ্যাস সাইনাসের সমস্যা প্রতিরোধে সহায়তা করে। হাতে পায়ের জয়েন্টে ব্যথা হলে সাহায্য নিতে পারেন আদার তেলের।

খানিকটা অলিভ অয়েলে আদা ছেঁচে নিয়ে ফুটিয়ে নিন ৫ মিনিট। ঠাণ্ডা হলে ছেঁকে এই তেল দিয়ে ম্যাসাজ করুন হাতে পায়ের জয়েন্টে। আদার অ্যান্টিইনফ্লেমেটরি উপাদান দূর করে দেবে ব্যথা।

বমি বমি ভাব হচ্ছে? কিংবা মাথা ঘুরানো? একটুখানি আদা স্লাইস করে লবণ দিয়ে চিবিয়ে খেয়ে নিন। দেখবেন বমি ভাব একেবারেই কেটে গিয়েছে।

হজমে সমস্যার কারণে পেটে ব্যথা হলে আদা কুচি খেয়ে নিন। আদা গ্যাসের সমস্যা থেকেও মুক্তি দিতে বেশ কার্যকরী।

খাবারের পুষ্টি দেহে সঠিকভাবে শোষণ করার ক্ষমতা বাড়ায় আদা। তাই প্রতিদিন খুব সামান্য পরিমাণে হলেও আদা খাওয়া অভ্যাস করা উচিত সকলের।

বুকে সর্দি কফ জমে গিয়েছে? নিঃশ্বাস টানতে সমস্যা হচ্ছে? ২ কাপ পানিতে আদা কুচি দিয়ে ফুটিয়ে নিন। পানি যখন অর্ধেক হয়ে আসবে জ্বাল হয়ে তখন ছেঁকে নামিয়ে ১ টেবিল চামচ মধু মিশিয়ে পান করে ফেলুন। বেশ আরাম পাবেন।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় করলার চা

ন’ভেল করোনাভাই’রাস। চীনের উহানে প্রথমে শনাক্ত হওয়া এ ভাই’রাস ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বের প্রায় সব দেশ ও অঞ্চলে। এতে প্রতিনিয়ত মৃ’তের সংখ্যা বাড়ছে, বাড়ছে আ’ক্রা’ন্তের সংখ্যাও। ৮ মার্চ বাংলাদেশে প্রথম করোনা’ভাই’রাস শনাক্ত হওয়ার পর এখানেও বাড়ছে আ’ক্রা’ন্ত ও মৃ’তের সংখ্যা।

মহা’মারি করোনা থেকে পালানোর চেষ্টা করছি আমরা। কিন্তু সবই পেরে উঠছি না। অনেকেই আ’ক্রা’ন্ত হচ্ছেন করোনা’ভাই’রাসে। অনেকের আবার ঝুঁ’কি নিয়ে চলতে হচ্ছে বাইরে।

এমন অবস্থায় সবাই রয়েছি ঝুঁ’কির মধ্যে। প্রতিদিনই বিভিন্ন খাবার নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। বিশেষ করে সেসব খাবার, যেগুলো খেলে আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। নানা রোগ নিয়ন্ত্রণে কার্যকর। এমনই একটি পানীয় করোলার চা।

জানেন তো, করলা চায়ের কতো গুণ? জেনে নিন:

১- ডায়াবেটিস হলে রক্তে সুগারের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে, ২- এই হার্বাল চা কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ করে, ৩- দৃষ্টিশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে,

৪- লিভার পরিষ্কার রাখে, ৫- ওজন নিয়ন্ত্রণেও সাহায্য করে, ৬- ভিটামিন সি সমৃদ্ধ করলা চা সব ধরনের ইনফেকশনের হাত থেকে রক্ষা করে, ৭- রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

শুকনো করলার টুকরাকে পানিতে ভিজিয়ে রেখে এই তেতো চা তৈরি হয়। পরিমাণ মতো পানি ফুটিয়ে নিন, তার মধ্যে শুকনো করলার টুকরো দিয়ে ১০ মিনিট মাঝারি আঁচে ফোটান যাতে করলার পুষ্টি পাওয়া যায়।

সামান্য চা পাতাও দিতে পারেন, এই হার্বাল চায়ে। মিষ্টির জন্য চিনির পরিবর্তে স্বাদমতো মধু নিন। এটি গুঁড়া হিসেবেও বিভিন্ন অনলাইনে পাওয়া যায়। ডায়েটে ব্যবহার করার আগে ডাক্তারের পরামর্শ নিন।