মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে বরিশালের বানারীপাড়ার ব্রিজ!

83

বানারীপাড়ার ব্রিজ- গত এক বছর পূর্বে ব্রিজের মাঝের অংশ ভেঙে বড় গর্তের সৃষ্টি হয়। এতে করে বরিশালের বানারীপাড়ায় আলতা ফায়জুল হক ব্রিজ ম’রণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। এ ছাড়া বালুর বলগেটের ধাক্কায় ব্রিজের নিচের লোহার বিম ও এঙ্গেল ভেঙে ব্রিজ দেবে ও কিছুটা হেলে পড়ে মৃ’ত্যু ফাঁদে পরিণত হয়েছে।

বরিশালের বানারীপাড়া উপজেলার রায়েরহাট ও পিরোজপুরের স্বরূপকাঠি উপজেলার কুড়িয়ানা সড়কের আলতা গ্রামে ফায়জুল হক ব্রিজটি ১৯৯৮-৯৯ অর্থ বছরে নির্মাণ করা হয়।

শের-ই বাংলার একমাত্র তনয় তৎকালীণ আওয়ামী লীগ সরকারের পাট ও বস্ত্র প্রতিমন্ত্রী এবং বানারীপাড়া-স্বরূপকাঠি আসনের সংসদ সদস্য এ কে ফায়জুল হক দুই উপজেলার মধ্যে সেতুবন্ধন তৈরির জন্য ব্রিজটি নির্মাণ করেন।

স্থানীয়রা তার নামে এর নামকরণ করেন। এদিকে গত এক বছর পূর্ব থেকে ব্রিজটি ম’রণ ফাঁদে পরিণত হলেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের এ নিয়ে কোনো মাথা ব্যথা নেই। স্থানীয়রা ব্রিজের ভাঙা অংশে স্টিলের পাত দিয়ে জোড়াতালি দেওয়ার চেষ্টা করেছেন।

সাম্প্রতিক সময়ে ব্রিজের মাঝে আরো একাধিক গর্তের সৃষ্টি হওয়ার পাশাপাশি রেলিং খসে খসে পড়ছে। দিন-রাত ক্ষতিগ্রস্ত ব্রিজের ওপর দিয়ে মৃ’ত্যু ঝুঁ’কি নিয়ে বিভিন্ন যানবাহন ও মানুষ চলাচল করছে। যেকোনো সময় মর্মান্তিক ট্র্যা’জেডি ঘটতে পারে।

বানারীপাড়া উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব গোলাম ফারুক বলেন, ঝুঁ’কিপূর্ণ ওই ব্রিজটি ভেঙে সেখানে নতুন ব্রিজ নির্মাণের জন্য ইতিমধ্যে এলজিইডি মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে।

মুন্সীগঞ্জে সাড়ে ৩১ কোটি টাকার অবৈধ কারেন্ট জাল জব্দ

মুন্সীগঞ্জ সদরে মুক্তারপুর নৌ পুলিশের অভিযানে ১ কোটি ৫ লাখ মিটার অবৈধ কারেন্ট জাল জব্দ করা হয়েছে। এসব জালের আনুমানিক মূল্য ৩১ কোটি ৫০ লাখ টাকা।

মুক্তারপুর নৌ পুলিশ স্টেশন জানায়, কারেন্ট জাল বিরোধী নিয়মিত অভিযানের পরিপ্রেক্ষিতে শুক্রবার সকাল ৬টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত মুন্সীগঞ্জ সদরের সরকার পাড়া মাতবর বাড়ির ৪টি অবৈধ কারেন্ট জাল তৈরির মিল ও হাতিমারা শেখ বাড়ির ৩টি তালাবদ্ধ রুম থেকে ১১৩ বস্তা অবৈধ কারেন্ট জাল জব্দ করা হয়। যার দৈর্ঘ্য ১ কোটি পাঁচ লাখ মিটার।

এছাড়াও অভিযানে ২৮৮০ পিস ববিন জব্দ করা হয়। যার মূল্য ২ লাখ ৮৮ হাজার টাকা। অভিযানের নেতৃত্ব দেন মুক্তারপুর নৌ পুলিশ স্টেশনের ইনচার্জ মো. কবির হোসেন খাঁন। অভিযানে কাউকে আটক করা হয়নি। এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে জানায় নৌ পুলিশ।