মোবাইল অনলাইনে অর্ডার করে পেলেন কাঠের টুকরো

116

মোবাইল ফোন অনলাইনে (ফেসবুকে) অর্ডার দিয়ে বাক্সভর্তি কাঠের টুকরো পেয়েছেন এক ব্যক্তি। তার অভি’যো’গের পরিপ্রেক্ষিতে একজনকে আটক করেছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব-৪)। রাজধানীর রূপনগর থানা এলাকা থেকে

আবুল কালাম (৪১) নামে এক প্র’তা’রককে আটক করা হয় বলে মঙ্গলবার (২৪ নভেম্বর) জানিয়েছে র‍্যাব। র‌্যাব-৪ এর সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার সাজেদুল ইসলাম সজল সংবাদমাধ্যমকে জানান, আটক আবুল কালাম ভিন্ন নামে ফেসবুকে একটি ফেক আইডি চালাতেন।

সেই আইডি থেকে জনপ্রিয় একটি প্রতিষ্ঠানের নামে স্যামসাং কোর এ-২ মডেলের মোবাইল ফোন বাজার মূল্যের চেয়ে কম দামে বিক্রির বিজ্ঞাপন দেন। তার বিজ্ঞাপনের ফাঁদে পড়ে এক ব্যক্তি ৮০টি মোবাইল ফোনের অর্ডার করেন।

কিন্তু ডেলিভারির সময় মোবাইল ফোন না দিয়ে কাঠের টুকরো ভর্তি মোবাইল বাক্স দিয়ে দেন প্র’তার’ক আবুল কালাম। আটক আবুল কালামের বিরুদ্ধে মিরপুর মডেল থানায় একটি মাম’লা দায়েরের প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে বলে জানান র‌্যাবের এই কর্মকর্তা।

তিনি জানান, দীর্ঘদিন ধরে অনেকের কাছ থেকে অনলাইনে প্রতারণা করে লাখ লাখ টাকা হা’তি’য়ে নিয়েছেন আবুল কালাম।

বলারও কেউ নেই, মানারও আগ্রহ নেই

করোনা’ভাই’রাসের দ্বিতীয় ঢেউ প্রতিরোধে ‘নো মাস্ক নো সার্ভিস’ নীতি গ্রহণ করেছে সরকার। মাস্ক পরিধান বাধ্যতামূলক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহারসহ স্বয়ংক্রিয় মেশিনে শরীরের তাপমাত্রা মাপার ব্যবস্থা করছে অনেক সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান।

তবে এসবের কোনো কিছুর বালাই নেই সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে। সদরঘাটের প্রবেশদ্বার ও বেশ কয়েকটি লঞ্চ ঘুরে দেখা গেছে, যাত্রীদের মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি মানার আগ্রহ নেই।

মাস্ক ছাড়াই টার্মিনালের গেট দিয়ে সদরঘাটে প্রবেশ করছেন বেশিরভাগ যাত্রী। যাত্রীদের জন্য হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও তাপমাত্রা মাপার কোনো ব্যবস্থা সেখানে নেই।

মাস্ক না পরার কারণ হিসেবে নানা অজুহাত দিচ্ছেন যাত্রীরা। এমনকি মাস্ক না পরার কারণ জানতে চাইলে বিরক্তিও প্রকাশ করছেন অনেকে। মঙ্গলবার (২৪ নভেম্বর) সন্ধ্যায় চাঁদপুরের সোনারতরী লঞ্চের দিকে ছুটছিলেন কয়েকজন যাত্রী। এ সময় বেশিরভাগ যাত্রীর মুখেই মাস্ক ছিল না।

মাস্ক না পরার কারণ জানতে চাইলে আমানত নামে এক যাত্রী বলেন, ‘সব সময়ই মাস্ক পরি। আজ আনতে ভুলে গেছি। এখন বাইরে গিয়ে একটা কিনে নেব।’

চাঁদপুরের লালকুঠি টার্মিনালে সার্জিক্যাল মাস্ক বিক্রেতা শরীফ জানান, আগের তুলনায় মাস্কের দাম ও বিক্রি উভয়ই বেড়েছে। আগে ৩টা মাস্ক ১০ টাকায় বিক্রি করতাম। তখন প্রতি বক্স ৬০ থেকে ৭০ টাকা ছিল। এখন সেই বক্সের দাম বেড়ে ২শ টাকার উপরে চলে গেছে। ঘাটে কোনো কড়াকড়ি নেই। এ কারণে মানুষের মুখে মাস্ক নেই।’