লুঙ্গি পরে রিক্সা চালক সেজে যেভাবে খু’নি ধরল এসআই !

324

টাঙ্গাইলের সখীপুর থানার এক উপ-পরিদর্শক (এসআই) রিক্সা চালক সেজে অল্প সময়ের মধ্যে এক হ’ত্যা মামলার আসামিকে ধরে বেশ প্রশংসা কুড়িয়েছেন ।

পরনে লুঙ্গি-শার্ট, পায়ে ছেঁড়া স্যান্ডেল। কাঁধে গামছা। দেখে আপাদমস্তক রিক্সা চালক মনে হলেও আদতে এটা এসআই ফয়সাল আহম্মেদের আ’সা’মি ধরার গল্প।

সখীপুর থানা সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ঘাটেশ্বরী গ্রামের সৌদি আরব প্রবাসী আবদুর রহিমের স্ত্রী আফরোজা আক্তার (৩০) বিদ্যুৎস্পৃষ্ট মা’রা যান। আফরোজার দেবর আবদুর রশিদের বিদ্যুৎ লাইন থেকে এ দু’র্ঘ’ট’না ঘটেছে দাবি করেন নি’হ’ত আফরোজার চাচাতো দেবর জাবেদ আলী। লাশ সামনে রেখেই দুই চাচাতো ভাই আবদুর রশিদ ও জাবেদ আলী তর্কে জড়িয়ে পড়েন।

এ সময় তাদের ঝগড়া মেটাতে জাবেদ আলীর বাবা জয়নাল আবেদীন এগিয়ে আসেন। উ’ত্তে’জি’ত হয়ে একপর্যায়ে আবদুর রশিদ ঘরে গিয়ে ছু’রি এনে জাবেদ আলীর পেটে ঢু’কি’য়ে হ’ত্যা করে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় নি’হ’ত জাবেদ আলীর বাবা জয়নাল আবেদিন বাদী হয়ে একটি হ’ত্যা মামলা দায়ের করেন।

এরপর মামলাটির তদন্তভার দেওয়া হয় সখীপুর থানার এসআই ফয়সাল আহম্মেদকে। তদন্তের শুরুতে এসআই ফয়সাল তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় আসামির অবস্থান সম্পর্কে নিশ্চিত হন।

তদন্তকালে জানা যায়, রশিদ হ’ত্যা পর থেকে সাভারের সি আর পি এলাকায় পজিশনও নিয়েছিলেন। ইতোপূর্বে এসআই ফয়সাল তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় স্থানীয় লোকের সঙ্গে যোগাযোগ করে হ’ত্যা’কা’ণ্ডে’র বিষয়ে তাদের জানিয়ে পুলিশকে সহায়তা করতে বলেন।

পরিকল্পনা অনুযায়ী গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এসআই ফয়সাল রিকসা চালকের ছদ্মবেশে ওই এলাকায় অবস্থান করেন। একপর্যায়ে এসআই ফয়সাল দেখেন, দূর থেকে একটি লোক একটি দোকানের পাশে অবস্থান নিচ্ছে। এ সময় হ’ত্যা’কা’রী রশিদের পাশেই এসআই ফয়সাল ও সঙ্গীয় ফোর্সরা অবস্থান করছিলেন। একপর্যায়ে কোনো কালক্ষেপণ না করে রশিদকে পেছন থেকে জাপটে ধরেন এসআই ফয়সাল।

হঠাৎ জনসম্মুখে এমন জাপটে ধরার কারণ উপস্থিত লোকজন জানতে চাইলে নিজের পরিচয় দিয়ে এসআই ফয়সাল বলেন, যাকে ধরা হয়েছে সে হ’ত্যা মামলার আসামি। পুলিশের এমন কাজের জন্য স্থানীয়দের প্রসংশায় প্রশংসিত হন সখিপুর থানা পুলিশের এই চৌকস অফিসার।

এ বিষয়ে সখীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমীর হোসেন জানান, আসামি রশিদকে গ্রে’ফ’তা’রে এসআই ফয়সালের ভূমিকা প্রশংসনীয়।

৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট বাতিলের খবর সত্য নয় !

৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট বাতিলের গুঞ্জন প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অর্থনীতিবিষয়ক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান বলেছেন, কোনো সরকার যদি গর্দভ দ্বারা পরিচালিত হয়, তাহলে এ ধরনের নোট বাতিলের খবর আগে ঘোষণা দেয়। ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট বাতিলের খবর সত্য নয়।

গতকাল বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবিরের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি। এ সময় ডেপুটি গভর্নর এস এম মুনিরুজ্জামান, আহমেদ জামালসহ স‌ংশ্লিষ্ট শাখার কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

ড. মসিউর রহমান বলেন, আজকের আলোচনায় মূল ইস্যু ছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাজ এবং তারা কীভাবে তা বাস্তবায়ন করছে সে বিষয়ে। এসব বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। তবে শুদ্ধি অভিযান এবং বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে বিশেষ কোনো আলোচনা হয়নি বলে তিনি জানান।

পত্র-পত্রিকায় অর্থনৈতিক অনিয়মের যেসব খবর আসে তা সবসময় পুরোপুরি সত্য নয় অভিযোগ করে তিনি বলেন, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে আংশিক খবর প্রকাশিত হয়। যার সবসময় কোনো প্রমাণ থাকে না।

৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট বাতিলের গুঞ্জন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বিষয়টি সম্পর্কে বৈঠকে জানতে চাইলে কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে আমাদের কিছু তথ্য দেয়া হয়। সেই তথ্য দেখে মনে হচ্ছে সব খবর সঠিক নয়। ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট বাতিলের খবর সত্য নয়।