শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে আদা খাওয়া কেন জরুরি

365

বর্তমান পরিস্থিতিতে করোনা’ভা’ইরাসের কবল থেকে বাঁ’চ’তে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করা জরুরি। পুষ্টিবিদদের মতে, উপকারের দিক থেকে আদা সবাইকে পেছনে ফেলে দিতে পারে।

চলুন জেনে নিই কী কারণে আদা খাবেন:

১- নানা কারণে গ্যাস-অম্বলের সমস্যা আমাদের লেগেই থাকে। কারও কারও তো গ্যাস-অম্বলের সমস্যা পিছু ছাড়ে না। এই সমস্যায় আপনার উপকারি বন্ধু হতে পারে আদা। প্রতিদিন একটু করে আদা খেলে গ্যাস-অম্বলের সমস্যার উপকার পাবেন।

২- ব্যথা উপশমে আদা অত্যন্ত উপকারি। বিশেষ করে আর্থারাইটিসের সমস্যায় আদা খাওয়া খুবই ভালো। শরীরে কোথাও আঘাত লাগলেও আদা তা তাড়াতাড়ি সারিয়ে দিতে পারে।

৩- ক্যানসার প্রতিরোধেও আদার উপকারিতা প্রমাণিত। শরীরের ক্যানসার কোষগুলোকে নিষ্ক্রিয় করতে সাহায্য করে আদা। বিশেষ করে ওভারিয়ান ক্যানসার কোষ ধ্বংস করার ক্ষমতা রয়েছে আদার মধ্যে।

৪- আদা হজম ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। রোজ একটু করে আদা খেলে কিছু দিনের মধ্যেই আপনার হজম ক্ষমতা অনেক উন্নত হয়ে যাবে।

৫- মাথা ধরার সমস্যায় আদা অত্যন্ত উপকারি। খুব মাথা ধরলে আদা দেওয়া চা খেলে অনেকটা আরাম পাওয়া যায়। কোনও পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া ছাড়াই আপনাকে আরাম দেবে আদা।

৬- আদা যেহেতু হজম ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে, তাই নিয়মিত আদা খেলে তা ওজন কমাতেও সহায়ক হবে।

৭- সর্দি-কাশিতে অত্যন্ত উপকারি আদা। সর্দি-কাশি হলে সকালে খালি পেটে আদা-তুলসিপাতার রস খেলে ম্যাজিকের মতো কাজ হয়।

সূত্র: ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস…

স্বাদ, গন্ধ পাওয়ার ক্ষমতা কমে যাওয়াও করোনা’ভা’ইরাস সংক্রমণের লক্ষণ হতে পারে

খাবারের স্বাদ ও কোনো কিছুর গন্ধ পাওয়ার ক্ষমতা কমে যাওয়াও মহামারি করোনা’ভা’ইরাসের লক্ষণ হতে পারে বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন। তারা বিভিন্ন দেশ হতে প্রকাশিত প্রতিবেদন বিশ্লেষণ করে এ তথ্য জানিয়েছেন।

তারা বলছেন, এটা রোগীদের পরীক্ষা করার একটা ভালো উপায় হতে পারে। ভাইরাস সংক্রমণ গন্ধ নেয়ার ক্ষমতা হ্রাস করে দেয় এ ধারণা নতুন নয়। শ্বাস-প্রশ্বাসের ভাইরাল সংক্রমণ গন্ধ নষ্ট হওয়ার একটি সাধারণ কারণ। কেননা তা বায়ুপ্রবাহ এবং গন্ধ শনাক্ত করার ক্ষমতায় হস্তক্ষেপ করতে পারে।

সংক্রমণ সমস্যা সমাধানের পরে গন্ধ নেয়ার অনুভূতি সাধারণত ফিরে আসে। তবে খুব কম সংখ্যক ক্ষেত্রে সংক্রমণের অন্যান্য লক্ষণগুলো অদৃশ্য হওয়ার পরেও বজায় থাকতে পারে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে এটি স্থায়ীও হতে পারে।

সংক্রমিত লোকদের গন্ধ নেয়ার ক্ষমতা হ্রাস পাওয়ার ক্ষেত্রে দক্ষিণ কোরিয়া, চীন এবং ইতালি থেকে ‘ভাল প্রমাণ’ পাওয়া গেছে বলে ব্রিটিশ রাইনোলজিকাল সোসাইটির সভাপতি এবং ইএনটি ইউকের একটি যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়েছে।

কান, নাক এবং গলা বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের প্রতিনিধিত্বকারী এ ব্রিটিশ দলটি বলছে, দক্ষিণ কোরিয়ায় ভাইরাস সংক্রমণের পরীক্ষা করা প্রায় ৩০ শতাংশ লোকের গন্ধের নেয়ার ক্ষমতা হ্রাস পেয়েছে এবং কিছু ক্ষেত্রে সামান্য হ্রাস পেয়েছে বলে উল্লেখ করেছেন তারা।

তারা বলছেন নতুন করোনা’ভা’ইরাস সম্পর্কে অন্যান্য লক্ষণগুলো- জ্বর, কাশি এবং শ্বাসকষ্ট হওয়া ছাড়াও সং’ক্র’মি’ত লোকদের চিহ্নিত করার উপায় হিসেবে এটি কার্যকর হতে পারে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডাব্লিউএইচও) মহামারির প্রাদুর্ভাব বিশেষজ্ঞ মারিয়া ভেন কেরখাব সোমবার সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘জাতিসংঘের স্বাস্থ্য সংস্থা গন্ধ বা স্বাদের ক্ষমতা কমে যাওয়া করোনাভাইরাসের পরিক্ষিত বৈশিষ্ট্য কিনা তা নিয়ে কাজ করছে।’